|

বিজ্ঞান অনুশীলন বই ৬ষ্ঠ শ্রেণি ৩য় অধ্যায় প্রশ্ন ও উত্তর

বিজ্ঞান অনুশীলন বই ৬ষ্ঠ শ্রেণি ৩য় অধ্যায়: পদার্থের পরিবর্তন দুই প্রকার। ভৌত পরিবর্তন এবং রাসায়নিক পরিবর্তন। ভৌত পরিবর্তন একটি পদার্থের ভৌত বা বাহ্যিক বৈশিষ্ট্যকে প্রভাবিত করে এবং রাসায়নিক পরিবর্তন তার রাসায়নিক বৈশিষ্ট্যকে প্রভাবিত করে। এই শিখন অভিজ্ঞতার মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন ধরনের খাবার প্রস্তুত করা এবং তা নিয়ে আলোচনার মাধ্যমে পদার্থের এই ভৌত ও রাসায়নিক পরিবর্তন অনুসন্ধান করবে।

শিক্ষার্থীরা স্কুলে একটা পিকনিকের আয়োজন করবে। সম্ভব হলে স্কুলে একটা ছুটির দিনে রান্নাবান্নার আয়োজন করা যেতে পারে, সেটা সম্ভব না হলে দলের প্রত্যেকে ভাগ করে নিয়ে নির্দিষ্ট পরিমাণ রান্না বাসা থেকে করে নিয়ে আসতে পারে। নির্দিষ্ট দিনে রান্না করে নিয়ে আসার আগে সবাই বাসায় খাবারগুলো তৈরির চেষ্টা করে দেখবে। এরপর আলোচনা করবে, যেসব উপাদান দিয়ে খাবারগুলো প্রস্তুত করা হয়েছে সেগুলোর কাঁচা অবস্থায়, আলাদা অবস্থায় রং, আকার, ঘ্রাণ, স্বাদ কেমন ছিল?

প্রক্রিয়াকরণের পর তার কী ধরনের পরিবর্তন ঘটছে? কোন কোন খাবার থেকে উপাদানগুলো আবার আগের অবস্থায় ফিরিয়ে নেয়া বা আলাদা করা সম্ভব? খাবারগুলো কিছুক্ষণ রেখে দিলে তার মধ্যে কী পরিবর্তন দেখা যাচ্ছে? এই আলোচনা থেকে শিক্ষার্থীরা পদার্থের ভৌত ও রাসায়নিক পরিবর্তন সম্পর্কে ধারণা তৈরি করবে। পিকনিকের সব কাজ শেষ হবার পর আর কোন কোন ক্ষেত্রে বিভিন্ন বস্তুর পরিবর্তন আমরা দেখি সেগুলোর তালিকা করে কোনটা ভৌত ও কোনটা রাসায়নিক পরিবর্তন তা শনাক্ত করবে।


বিজ্ঞান অনুশীলন বই ৬ষ্ঠ শ্রেণি ৩য় অধ্যায় কুইজ প্রশ্ন

প্রশ্ন ১। পিকনিকে রান্নার কাজে ব্যবহৃত উপাদানগুলোর পরিবর্তন দ্বারা কী বুঝানো হয়েছে?
উত্তর: পদার্থের ভৌত ও রাসায়নিক পরিবর্তন।

প্রশ্ন ২। পেঁয়াজ, মরিচ, রসুন ইত্যাদি মসলা কাটার ফলে কোন ধরনের পরিবর্তন ঘটবে?
উত্তর: ভৌত পরিবর্তন।

প্রশ্ন ৩। বিভিন্ন ধরনের মসলার রান্না পরবর্তী কোন ধরনের পরিবর্তন ঘটবে?
উত্তর: রাসায়নিক পরিবর্তন।

প্রশ্ন ৪। কাঁচা মরিচের লাল রং ধারণ করা কোন ধরনের পরিবর্তন?
উত্তর: রাসায়নিক পরিবর্তন।

প্রশ্ন ৫। দোমড়ানো বরফ গলে পানিতে পরিণত হওয়া কোন ধরনের পরিবর্তন?
উত্তর: ভৌত পরিবর্তন।

প্রশ্ন ৬। রান্নাঘরে পানি ফোটানো কোন ধরনের পরিবর্তন?
উত্তর: ভৌত পরিবর্তন।

প্রশ্ন ৭। পানি ও বালির মিশ্রণ কোন ধরনের পরিবর্তন?
উত্তর: ভৌত পরিবর্তন।

প্রশ্ন ৮। কাগজের টুকরা, কাচ ভাঙা, ইটের গুঁড়া ইত্যাদি কোন ধরনের পরিবর্তন?
উত্তর: ভৌত পরিবর্তন।

প্রশ্ন ৯। পানি ও চিনির মিশ্রণ কোন ধরনের পরিবর্তন?
উত্তর: ভৌত পরিবর্তন।

প্রশ্ন ১০। পদার্থের রাসায়নিক পরিবর্তনের ফলে কোন ধরনের পদার্থ তৈরি হয়?
উত্তর: সম্পূর্ণ নতুন পদার্থ।

প্রশ্ন ১১। কাঠ পোড়ালে ছাই, কার্বন ডাইঅক্সাইড এবং পানিতে পরিণত হয়। এখানে কোন ধরনের পরিবর্তন ঘটেছে?
উত্তর: রাসায়নিক পরিবর্তন।

প্রশ্ন ১২। ফল পচে যাওয়া কোন ধরনের পরিবর্তন?
উত্তর: রাসায়নিক পরিবর্তন।

প্রশ্ন ১৩। লোহায় মরিচা পড়া কোন ধরণের পরিবর্তন?
উত্তর: রাসায়নিক পরিবর্তন।

প্রশ্ন ১৪ সালোকসংশ্লেষণ, খসন, রেচন কোন ধরনের পরিবর্তন?
উত্তর: রাসায়নিক পরিবর্তন।


বিজ্ঞান অনুশীলন বই ৬ষ্ঠ শ্রেণি ৩য় অধ্যায় সংক্ষিপ্ত প্রশ্ন

প্রশ্ন ১। পদার্থ কাকে বলে?
উত্তর: যা জায়গা দখল করে এবং যার ভর আছে তাকেই পদার্থ বলে। মহাবিশ্বে যা কিছু রয়েছে সবই পদার্থ। যেমন- কলম, পানি, গ্যাস ইত্যাদি।

প্রশ্ন ২। পদার্থের কয়টি অবস্থা রয়েছে?
উত্তর: পদার্থের তিনটি অবস্থা রয়েছে। যথা- কঠিন, তরল ও বায়বীয়।

প্রশ্ন ৩। উদ্বায়ী পদার্থ কাকে বলে?
উত্তর: যেসব কঠিন পদার্থকে তাপ দিলে তা তরলে পরিণত না হয়ে সরাসরি বাষ্পে পরিণত হয়, সেগুলোকে উদ্বায়ী পদার্থ বলা হয়।

প্রশ্ন ৪। ভৌত পরিবর্তন কাকে বলে?
উত্তর: যে পরিবর্তনে পদার্থ মৌলিকভাবে পরিবর্তিত হয় না তাকে ভৌত পরিবর্তন বলে। যেমন- বরফ গলানো, কাচ ভাঙা ভৌত পরিবর্তন।

প্রশ্ন ৫। রাসায়নিক পরিবর্তন কাকে বলে?
উত্তর: যে পরিবর্তনে পদার্থের উপাদানগুলোর গঠনগত পরিবর্তন হয়। তাকে রাসায়নিক পরিবর্তন বলে। রাসায়নিক পরিবর্তন রাসায়নিক বিক্রিয়া নামেও পরিচিত।

প্রশ্ন ৬। গন্ধ কী?
উত্তর: গন্ধ মূলত গ্যাসীয় পদার্থ, যা ব্যাপন প্রক্রিয়ায় বাতাসের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে।


বিজ্ঞান অনুশীলন বই ৬ষ্ঠ শ্রেণি ৩য় অধ্যায় বড় প্রশ্ন

প্রশ্ন ১। হালকা অ্যালুমিনিয়ামের কয়েন পানিতে ডুবে গেলেও ভারী কাঠের গুঁড়ি পানিতে ভাসে কেন?
উত্তর: একটি বস্তুর ভাষা এবং ডোবা সেই বস্তুর ভরের উপর নির্ভর করে না, তার ঘনত্বের উপর নির্ভর করে। অ্যালুমিনিয়ামের ঘনত্ব পানির ঘনত্বের চেয়ে বেশি যার কারণে সেটি পানিতে ডুবে যায় পক্ষান্তরে কাঠের গুঁড়ির ঘনতু পানির চেয়ে কম তাই সেটি ভাসে।

প্রশ্ন ২। পদার্থের অবস্থা ব্যাখ্যা কর।
উত্তর: সহজভাবে আমরা বলতে পারি পদার্থের অবস্থা তিনটি- কঠিন, তরল, বায়বীয়। কঠিন পদার্থের ভর, আকার, আয়তন নির্দিষ্ট। এর আকারের পরিবর্তন করতে এর উপর নানা কাজ করতে হয়। অন্যদিকে তরলের আয়তন নির্দিষ্ট হলেও আকার নির্দিষ্ট নয়। যখন যে পাত্রে রাখা হয় সেই পাত্রের আকার ধারণ করে। আর বায়বীয় পদার্থের আকার, আয়তন কোনোটিই নির্দিষ্ট নয়। যখন যে পাত্রে রাখা হয় সেই পাত্রের আকার এবং আয়তন ধারণ করে।

প্রশ্ন ৩। কঠিন, তরল ও বায়বীয় গ্যাসের দুটি করে ব্যবহার লেখ।
উত্তর: কঠিন: (i) ঘরবাড়ি তৈরিতে ব্যবহৃত হয়। (ii) যন্ত্রপাতি তৈরিতে ব্যবহৃত হয়।
তরল: (i) প্রত্যহ জীবনে নিত্য প্রয়োজনে পানি, তেল ব্যবহৃত হয়। (ii) মোটর গাড়ির জ্বালানি হিসাবে ব্যবহৃত হয়।
বায়বীয়: (i) অগ্নিনির্বাপক যন্ত্রে ব্যবহৃত হয়। (ii) বেলুন ফুলাতে ব্যবহৃত হয়।

প্রশ্ন ৪। আমাদের দৈনন্দিন জীবনে লক্ষণীয় পাঁচটি রাসায়নিক পরিবর্তনের উদাহরণ দাও।
উত্তর: আমাদের দৈনন্দিন জীবনে লক্ষণীয় পাঁচটি রাসায়নিক পরিবর্তনের উদাহরণ নিচে দেওয়া হলো-
১. কাঁচাকলা পাকা কলায় পরিণত হওয়া।
২. লোহায় মরিচা পড়া।

৩. কাগজ পোড়ানো।
8. ফল পচা।
৫. দুধ টক হয়ে যাওয়া।

প্রশ্ন ৫। আমাদের দৈনন্দিন জীবনে লক্ষণীয় পাঁচটি ভৌত পরিবর্তনের উদাহরণ দাও।
উত্তর: আমাদের দৈনন্দিন জীবনে লক্ষণীয় পাঁচটি ভৌত পরিবর্তনের উদাহরণ নিচে দেওয়া হলো-
১. বরফ গলে পানিতে পরিণত হওয়া।
২. পানি বরফে পরিণত হওয়া।

৩. পানিতে চিনি দ্রবীভূত করা।
8. মোম গলে যাওয়া।
৫. কাগজ টুকরা করা।

প্রশ্ন ৬। রাসায়নিক পরিবর্তন রাসায়নিক বিক্রিয়া নামে পরিচিত- ব্যাখ্যা কর।
উত্তর: রাসায়নিক পরিবর্তনের ফলে একটি পদার্থ তার উপাদানগুলোর গঠনের পরিবর্তনের মাধ্যমে সম্পূর্ণরূপে নতুন পদার্থে পরিবর্তিত হয়। আর এটিই হলো রাসায়নিক বিক্রিয়ার মূলকথা। হাইড্রোজেন এবং অক্সিজেন নিজেদের মধ্যে বিক্রিয়ার মাধ্যমে সম্পূর্ণ ভিন্নধর্মী পানিতে পরিণত হয়। এটি রাসায়নিক পরিবর্তন।

প্রশ্ন ৭। তোমার বাসার রান্নাঘরে বিভিন্ন বস্তুর ভৌত ও রাসায়নিক পরিবর্তন ঘটছে তা খুঁজে বের করে লেখ।
উত্তর: আমার বাসার রান্না ঘরে ব্যবহার্য বিভিন্ন বস্তুর যে ধরনের পরিবর্তন ঘটেছে- ভৌত পরিবর্তন: পানি গরম করা, আলুকুচি, পেঁয়াজ কাটা, রসুন বাটা, মরিচ বাটা, সবজি কাটা, শিল-পাটায় মশলা পিষে বানানো, মাছ কাট! ইত্যাদি। রাসায়নিক পরিবর্তন: রান্না করা, চুলায় গ্যাস পোড়ানো, লাকড়ি পোড়ানো, সবজি রান্না, মসলা গরম করা তেলে ভাজা বেগুন ইত্যাদি।

প্রশ্ন ৮। গরম খাবার বাইরে রেখে দিলে ঠান্ডা হয়ে যায় কিন্তু ফ্রিজ থেকে আইসক্রিম বের করে রেখে দিলে গরম হয়ে গলতে শুরু করে কেন? ব্যাখ্যা করো।
উত্তর: তাপ সব সময় বেশি তাপমাত্রার বস্তু থেকে কম তাপমাত্রার বস্তুতে সঞ্চালিত হয়। গরম খাবারের চেয়ে তার চারপাশের বা পরিবেশের তাপমাত্রা কম থাকে, তাই গরম খাবার থেকে তাপ পরিবেশে চলে যায়। এতে করে গরম খাবারের তাপমাত্রা কমে তা ঠাণ্ডা হয়ে যায়। অন্যদিকে, ফ্রিজ থেকে বের করা আইসক্রিমের তাপমাত্রা তার চারপাশের তাপমাত্রা থেকে কম থাকে। ফলে চারপাশ থেকে তাপ আইসক্রিমে আসে। এতে আইসক্রিমের তাপমাত্রা বেড়ে যায় এবং এটি গলতে শুরু করে।


🔰🔰 আরও দেখুন: বিজ্ঞান অনুশীলন বই ৬ষ্ঠ শ্রেণি ১ম অধ্যায় প্রশ্ন ও উত্তর
🔰🔰 আরও দেখুন: বিজ্ঞান অনুশীলন বই ৬ষ্ঠ শ্রেণি ২য় অধ্যায় প্রশ্ন ও উত্তর


আশাকরি বিজ্ঞান অনুশীলন বই ৬ষ্ঠ শ্রেণি ৩য় অধ্যায় প্রশ্ন ও উত্তর আর্টিকেল টি আপনাদের ভালো লেগেছে। আমাদের কোন আপডেট মিস না করতে ফলো করতে পারেন আমাদের ফেসবুক পেজ ও সাবক্রাইব করতে পারেন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল।