|

বিজ্ঞান অনুসন্ধানী পাঠ ৭ম শ্রেণি অধ্যায় ১৩ প্রশ্ন ও উত্তর

বিজ্ঞান অনুসন্ধানী পাঠ ৭ম শ্রেণি অধ্যায় ১৩: আমাদের শরীরকে একটি কাঠামো প্রদান করে শরীরের শক্ত ও কোমল হাড় বা অস্থি। এই শক্ত ও কোমল অস্থি দ্বারা গঠিত যে তন্ত্র দেহের মূল কাঠামো গঠন করে এবং অভ্যন্তরীণ গুরুত্বপূর্ণ ও কোমল অঙ্গসমূহকে বাইরের আঘাত থেকে রক্ষা করে তাকে কঙ্কালতন্ত্র বলে।

মানবদেহের কঙ্কালতন্ত্র বহিঃকঙ্কাল ও অন্তঃকঙ্কাল নিয়ে গঠিত। আমরা যে খাদ্য গ্রহণ করি, তাদের অধিকাংশই জটিল খাদ্য। এই জটিল খাদ্যদ্রব্যকে আমাদের শরীর শোষণ করে সরাসরি কাজে লাগাতে পারে না। যে শারীরবৃত্তীয় প্রক্রিয়ায় জটিল, অদ্রবণীয় খাদ্যবস্তু নির্দিষ্ট এনজাইমের সহায়তায় দেহের গ্রহণ উপযোগী দ্রবণীয় সরল ও তরল খাদ্য উপাদানে পরিণত হয়, তাকে পরিপাক বলে। যে তন্ত্র পরিপাকে অংশ নেয়, তাকে পৌষ্টিকতন্ত্র বা পরিপাক তন্ত্র বলে।


বিজ্ঞান অনুসন্ধানী পাঠ ৭ম শ্রেণি অধ্যায় ১৩ সত্য/মিথ্যা নির্ণয়

১. মানব শরীরের কাঠামোকে কঙ্কাল বলা হয়।
২. মানব কঙ্কাল শুধু চামড়া দিয়ে ঢাকা থাকে।
৩. অনেকগুলো অঙ্গ একত্রিত হয়ে যখন একই কাজ করে, তাদের তন্ত্র হিসেবে বিবেচনা করা হয়।
৪. বেঁচে থাকার জন্য আমাদের শক্তির দরকার নেই।
৫. কঙ্কালতন্ত্র অস্থি ও তরুণাস্থি নিয়ে গঠিত।
৬. বহিঃকঙ্কাল নিয়ে মানবদেহের কঙ্কালতন্ত্র গঠিত।

৭. দাঁত, লোম, নখ প্রভৃতি অন্তঃকঙ্কাল।
৮. অস্থি এক প্রকার জীবন্ত টিস্যু।
৯. অস্থি শক্ত ও স্পঞ্জ জাতীয় উভয় পদার্থে গঠিত।
১০. স্বাভাবিক অবস্থায় অস্তিতে প্রায় ৮০% পানি থাকে।
১১. অস্থির তুলনায় তুলনামূলকভাবে অনমনীয় অংশ হলো তরুণাস্থি।
১২. তরুণাস্থির উপরিভাগ সাধারণত মসৃণ থাকে।

১৩. দুই বা ততোধিক অস্থির সংযোগস্থলকে অস্থিসন্ধি বলে।
১৪. কঙ্কাল দেহের মজবুত কাঠামো দান করে না।
১৫. পরিপাকনালির সবচেয়ে দীর্ঘ অংশ হলো পাকস্থলী।
১৬. দেহের সবচেয়ে বড় গ্রন্থি হলো যকৃৎ।
১৭. গ্যাস্ট্রিক গ্রন্থি নিঃসৃত রস হলো পাচক রস।
১৮. বেশি মসলা ও তেলযুক্ত খাবার খেলে আমাশয় রোগ হয়।

উত্তর: ১. সত্য, ২. মিথ্যা, ৩. সত্য, ৪. মিথ্যা, ৫. সত্য, ৬. মিথ্যা, ৭. মিথ্যা, ৮. সত্য, ৯. সত্য, ১০. মিথ্যা, ১১. মিথ্যা, ১২. সত্য, ১৩. সত্য, ১৪. মিথ্যা, ১৫. মিথ্যা, ১৬. সত্য, ১৭. সত্য, ১৮. মিথ্যা।


বিজ্ঞান অনুসন্ধানী পাঠ ৭ম শ্রেণি অধ্যায় ১৩ সংক্ষিপ্ত প্রশ্ন ও উত্তর

প্রশ্ন-১। কঙ্কালতন্ত্র কাকে বলে?
উত্তর: অস্থি ও তরুণাস্থি দ্বারা গঠিত যে তন্ম দেহের মূল কাঠামো গঠন করে এবং অভ্যন্তরীণ গুরুত্বপূর্ণ ও কোমল অঙ্গসমূহকে বাইরের আঘাত থেকে রক্ষা করে তাকে কঙ্কালতন্ত্র বলে।

প্রশ্ন-২। অস্থি কী?
উত্তর: অস্থি হলো একধরনের জীবন্ত টিস্যু যা শক্ত ও স্পঞ্জ জাতীয় উভয় পদার্থ দ্বারা গঠিত।

প্রশ্ন-৩। অস্থিমজ্জা কাকে বলে?
উত্তর: অস্থির ভিতরের অংশে স্পঞ্জজাতীয় যে পদার্থ বিদ্যমান থাকে, তাকে অস্থিমজ্জা বলে।

প্রশ্ন-৪। অস্থিসন্ধি কী? 
উত্তর: দুই বা ততোধিক অস্থির সংযোগস্থল হলো অস্থিসন্ধি।

প্রশ্ন-৫। পেশিবন্ধনী বা টেন্ডন কী?
উত্তর: পেশিবন্ধনী হলো একটি সংযোগকারী টিস্যু যা হাড়ের সঙ্গে পেশিকে সংযুক্ত করে।

প্রশ্ন-৬। কঙ্কাল তন্ত্রের প্রধান কাজ কী?
উত্তর: কঙ্কাল তন্ত্রের প্রধান কাজ হলো দেহকে নির্দিষ্ট আকৃতি প্রদানে সহায়তা করা এবং দেহের মজবুত কাঠামো গঠন করা।

প্রশ্ন-৭। পরিপাকতন্ত্র কী?
উত্তর: পরিপাক তন্ত্রের মাধ্যমে খাদ্য গ্রহণ থেকে শুরু করে খাদ্য পরিপাক ক্রিয়া সম্পন্ন হয়ে অপ্রয়োজনীয় অংশ দেহের বাইরে নির্গত হয় সেই তন্ত্রকে পরিপাকতন্ত্র বলে।

প্রশ্ন-৮। পরিপাকতন্ত্রের অংশসমূহ কী কী?
উত্তর: পরিপাকতন্ত্রের অংশসমূহ হলো মুখছিদ্র, মুখগহ্বর, গলবিল, অনুনালি, পাকস্থলী, ক্ষুদ্রান্ত ও পায়ু।

প্রশ্ন-৯। পরিপাকগ্রন্থি কাকে বলে?
উত্তর: পরিপাকনালির সঙ্গে যুক্ত যেসব গ্রন্থির নিঃসৃত রস খাদ্য পরিপাকে অংশগ্রহণ করে, সেসব গ্রন্থিকে পরিপাকগ্রন্থি বলে।

প্রশ্ন-১০। চর্বি জাতীয় খাদ্য পরিপাক করে কে?
উত্তর: চর্বি জাতীয় খাদ্য পরিপাক করে পিত্তরস।

প্রশ্ন-১১। অ্যামিবিক আমাশয় রোগের উপসর্গগুলো কী কী?
উত্তর: অ্যামিবিক আমাশয় রোগের উপসর্গগুলো হলো তলপেট ব্যথা, মলের সাথে রক্ত বা শ্লেষ্মা নির্গত হওয়া ইত্যাদি।

প্রশ্ন-১২। খাদ্য পরিপাক সংক্রান্ত দুটি রোগের নাম লিখ।
উত্তর: খাদ্য পরিপাক সংক্রান্ত দুটি রোগের নাম- (i) আমাশয়, (ii) কোষ্ঠকাঠিন্য।

প্রশ্ন-১৩। কোষ্ঠকাঠিন্য কী?
উত্তর: কোষ্ঠকাঠিন্য হলো সাধারণত এক-দুই দিন পরপর মলত্যাগের বেগ হওয়া এবং শুষ্ক ও কঠিন মল নিষ্কাশিত হওয়া।

প্রশ্ন-১৪। পাচক রস কী?
উত্তর: গ্যাস্ট্রিক গ্রন্থি থেকে একধরনের নিঃসৃত রস হলো পাচক রস।

প্রশ্ন-১৫। খাদ্য পরিপাকে অংশগ্রহণকারী দুটি গ্রন্থির নাম লিখ।
উত্তর: খাদ্য পরিপাকে অংশগ্রহণকারী দুটি গ্রন্থির নাম- (i) লালা গ্রন্থি (ii) অগ্নাশয়।


বিজ্ঞান অনুসন্ধানী পাঠ ৭ম শ্রেণি অধ্যায় ১৩ যোগ্যতাভিত্তিক প্রশ্ন ও উত্তর

প্রশ্ন-১। খাদ্য পরিপাকে কোন কোন গ্রন্থি ভূমিকা রাখে তা লিখ।
উত্তর: খাদ্য পরিপাকে যে সকল গ্রন্থি ভূমিকা রাখে তাদের সম্পর্কে নিচে লিখা হলো-
১. লালাগ্রন্থি: লালা নামক একধরনের রস নিঃসৃত করে। লালায় পানি ও এনজাইম বিদ্যমান থাকে। পানি খাদ্যকে নরম করে।
২. যকৃৎ: যকৃৎ থেকে পিত্তরস নিঃসৃত হয় যা পিত্তথলিতে জমা থাকে। পিত্তরস চর্বি জাতীয় খাদ্য হজমে ভূমিকা রাখে।

৩. অগ্ন্যাশয়: অ্যামাইলেজ, প্রোটিয়েজ ও লাইপেজ জাতীয় এনজাইম অগ্ন্যাশয়ে তৈরি হয়। প্রোটিয়েজ এনজাইম আমিষ জাতীয় খাদ্য, অ্যামাইলেজ শর্করা জাতীয় খাদ্য, লাইপেজ চর্বি জাতীয় খাদ্য হজমে সহায়তা করে।
৪. গ্যাস্ট্রিক গ্রন্থি: গ্যাস্ট্রিক রস নিঃসৃত হয়।
৫. আন্ত্রিক গ্রন্থি: আন্ত্রিক রস নিঃসৃত হয়।

প্রশ্ন-২। পরিপাকতন্ত্রকে ভালো রাখতে আমাদের করণীয় কী?
উত্তর: পরিপাকতন্ত্রকে ভালো রাখতে আমাদের যা করণীয় তা নিচে উল্লেখ করা হলো-
১. প্রতিবার খাবার পর ভালোভাবে দাঁত ব্রাশ করতে হবে।
২. অতিরিক্ত পরিমাণে মিষ্টি জাতীয় খাবার পরিত্যাগ করতে হবে।
৩. বাসি ও পচা খাবার গ্রহণ থেকে বিরত থাকতে হবে।

৪. খাবার গ্রহণের পূর্বে দুই হাত ভালোভাবে সাবান দিয়ে পরিষ্কার করতে হবে।
৫. সবসময় সুষম খাবার গ্রহণ করতে হবে। ফাস্টফুড জাতীয় খাবার পরিত্যাগ করতে হবে।
৬. পানি সবসময় ফুটিয়ে পান করতে হবে। খাবারের পর পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি গ্রহণ করতে হবে।
৭. অতিরিক্ত মসলা ও তেল জাতীয় খাবার পরিহার করতে হবে।

প্রশ্ন-৩। অস্থি একধরনের জীবন্ত টিস্যু- কর।
উত্তর: মানবদেহ অসংখ্য অস্থির সমন্বয়ে গঠিত। অস্থিকে সাধারণভাবে শরীরের কঠিন ও প্রাণহীন অংশ বলে মনে করা যেতে পারে। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে অস্থি প্রাণহীন ও কঠিন অংশ নয়। অস্থি একধরনের জীবন্ত টিস্যু। অস্থির টিস্যু শক্ত ও স্পঞ্জ জাতীয় উভয় পদার্থের সমন্বয়ে গঠিত। অস্থির বাইরের অংশ শক্ত, কিন্তু ভিতরের অংশে স্পঞ্জ জাতীয় পদার্থ বিদ্যমান থাকে। এই স্পঞ্জ জাতীয় পদার্থকে অস্থিমজ্জা বলা হয়।

অস্থিমজ্জার শতকরা ৪০% জৈব পদার্থ এবং ৬০% অজৈব পদার্থ। অজৈব অংশ ক্যালসিয়াম ফসফেট ও ক্যালসিয়াম কার্বনেট দ্বারা গঠিত। স্বাভাবিক অবস্থায় অস্থিতে শতকরা ৪০-৫০% পানি বিদ্যমান থাকে। অন্যান্য অঙ্গের ন্যায় প্রতিটি অস্থিতে রক্ত ও স্নায়ুর সরবরাহ থাকে। স্নায়ুর মাধ্যমে সকল জীব যেকোনো উদ্দীপনা গ্রহণ করে এবং উদ্দীপনায় সাড়া দিয়ে পরিবেশের সাথে খাপ খাওয়ার পাশাপাশি শরীরের অন্যান্য অঙ্গের মধ্যে সমন্বয় সাধন করতে সক্ষম হয়। তাই বলা যায় যে, অস্থি কঠিন ও প্রাণহীন বস্তু নয়, অস্থি হলো একধরনের জীবন্ত টিস্যু।

প্রশ্ন-৪ বঙ্গালভম্বের শুরু ও স্পঞ্জ জাতীয় টিস্যু হলো অস্থি অস্থির বাইরের আবরণটি শক্ত কিন্তু ভিতরের আবরণটি স্পঞ্জ জাতীয় পদার্থ দ্বারা গঠিত। ভিতরের অংশকে আবার অস্থিমজ্জা বলা হয়।
ক. অস্থি কী দ্বারা গঠিত?
খ. অস্থির ভিতরের স্পঞ্জ জাতীয় পদার্থকে কী বলা হয়?
গ. অস্থিমজ্জায় কতভাগ জৈব অজৈব পদার্থ থাকে?
ঘ. অন্যান্য অঙ্গের ন্যায় অস্থিতে কীসের সরবরাহ থাকে?
ঙ. অস্থির অজৈব অংশ কী ধরনের রাসায়নিক উপাদান দ্বারা গঠিত?

উত্তর:
ক. শক্ত ও স্পঞ্জ জাতীয় পদার্থ দ্বারা গঠিত।
খ. অস্থিমজ্জা।
গ. ৪০ ভাগ জৈব পদার্থ এবং ৬০ ভাগ অজৈব পদার্থ।
ঘ. রক্ত ও স্নায়ু
ঙ. ক্যালসিয়াম ফসফেট ও ক্যালসিয়াম কার্বনেট দ্বারা গঠিত।

প্রশ্ন-৫। খাদ্য মুখ দ্বারা গ্রহণের পর বিভিন্ন পর্যায়ের মাধ্যমে হজম হয়ে খাদ্যের অপ্রয়োজনীয় বর্গা পায়ুর মাধ্যমে দেহের বাহিরে নির্গত হয়।
ক. উপরের প্রক্রিয়াটির নাম কী?
খ. পরিপাকতন্ত্র কীসের সমন্বয়ে গঠিত?
গ. পরিপাকনালির সবচেয়ে দীর্ঘ অংশ কোনটি?
ঘ. খাদ্যের জলীয় অংশ থেকে পানি শোষণ করে পরিপাকনালির কোন অঙ্গটি?
ঙ. খাদকে পিচ্ছিল এবং খাদ্য বস্তুকে গিলতে সাহায্য করে কোনটি?

উত্তর:
ক. পরিপাক।
খ. পরিপাকনালি ও পরিপাক গ্রন্থির সমন্বয়ে।
গ. ক্ষুদ্রান্ত।
ঘ. বৃহদান্ত্র।
ঙ. লালাগ্রন্থি থেকে নিঃসৃত লালা।

প্রশ্ন-৬। পরিপাকনাগির সাথে বেশ কিছু গ্রন্থি থাকে যাদের থেকে নিঃসৃত রস খাদ্য পরিপাকে সহযোগিতা করে। এসকল রস নিঃসৃত না হলে খাদ্য পরিপাক ক্রিয়ার ব্যাঘাত ঘটবে।
ক. দুটি পরিপাক গ্রন্থির নাম লেখ।
খ. মানবদেহের সবচেয়ে বড় পরিপাক গ্রন্থি কোনটি?
গ. আমিষ জাতীয় খাদ্য হজমে সহায়তা করে কোন গ্রন্থি?
ঘ. গ্যাস্ট্রিক রস নিঃসৃত হয় কোন গ্রন্থি থেকে?
ঙ. ক্ষুদ্রান্ত্রের প্রাচীরের ভিলাসে প্রচুর পরিমাণে কী থাকে?

উত্তর:
ক. লালগ্রন্থি, যকৃৎ।
খ. যকৃত
গ. অগ্ন্যাশয়।
ঘ. গ্যাস্ট্রিক গ্রন্থি থেকে।
ঙ. আন্ত্রিক গ্রন্থি বিদ্যমান থাকে।


🔰🔰 আরও দেখুন: বিজ্ঞান অনুসন্ধানী পাঠ ৭ম শ্রেণি ৩য় অধ্যায় প্রশ্ন ও উত্তর
🔰🔰 আরও দেখুন: বিজ্ঞান অনুসন্ধানী পাঠ ৭ম শ্রেণি ৪র্থ অধ্যায় প্রশ্ন ও উত্তর
🔰🔰 আরও দেখুন: বিজ্ঞান অনুসন্ধানী পাঠ ৭ম শ্রেণি ৫ম অধ্যায় প্রশ্ন ও উত্তর
🔰🔰 আরও দেখুন: বিজ্ঞান অনুসন্ধানী পাঠ ৭ম শ্রেণি ৬ষ্ঠ অধ্যায় প্রশ্ন ও উত্তর
🔰🔰 আরও দেখুন: বিজ্ঞান অনুসন্ধানী পাঠ ৭ম শ্রেণি ৭ম অধ্যায় প্রশ্ন ও উত্তর

🔰🔰 আরও দেখুন: বিজ্ঞান অনুসন্ধানী পাঠ ৭ম শ্রেণি ৮ম অধ্যায় প্রশ্ন ও উত্তর
🔰🔰 আরও দেখুন: বিজ্ঞান অনুসন্ধানী পাঠ ৭ম শ্রেণি ৯ম অধ্যায় প্রশ্ন ও উত্তর
🔰🔰 আরও দেখুন: বিজ্ঞান অনুসন্ধানী পাঠ ৭ম শ্রেণি ১০ম অধ্যায় প্রশ্ন ও উত্তর
🔰🔰 আরও দেখুন: বিজ্ঞান অনুসন্ধানী পাঠ ৭ম শ্রেণি অধ্যায় ১১ প্রশ্ন ও উত্তর
🔰🔰 আরও দেখুন: বিজ্ঞান অনুসন্ধানী পাঠ ৭ম শ্রেণি অধ্যায় ১২ প্রশ্ন ও উত্তর


আশাকরি “বিজ্ঞান অনুসন্ধানী পাঠ ৭ম শ্রেণি অধ্যায় ১৩ প্রশ্ন ও উত্তর” আর্টিকেল টি আপনাদের ভালো লেগেছে। আমাদের কোন আপডেট মিস না করতে ফলো করতে পারেন আমাদের ফেসবুক পেজ ও সাবক্রাইব করতে পারেন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল।