|

বিজ্ঞান অনুসন্ধানী পাঠ ৭ম শ্রেণি ৮ম অধ্যায় প্রশ্ন ও উত্তর

বিজ্ঞান অনুসন্ধানী পাঠ ৭ম শ্রেণি ৮ম অধ্যায়: দৈনন্দিন জীবনে আমরা বিভিন্ন কাজের সাথে জড়িত। কাজের সাথে সম্পর্ক রয়েছে শক্তির ও ক্ষমতার। এছাড়া রয়েছে শক্তির বিভিন্ন রূপ এবং এদের একরূপ থেকে অন্যরূপে রূপান্তরের প্রক্রিয়া। পাশাপাশি রয়েছে নবায়নযোগ্য ও অনাবায়নযোগ্য শক্তির ব্যবহার। তেমনিভাবে শক্তির সংকট নিরসনে আমাদের শক্তি সংরক্ষণের পাশাপাশি বিকল্প শক্তির সন্ধান করতে হচ্ছে। টেকসই উন্নয়নের জন্য শক্তির পরিমিত ও বিজ্ঞানসম্মত ব্যবহার একটি অপরিহার্য বিষয়।


বিজ্ঞান অনুসন্ধানী পাঠ ৭ম শ্রেণি ৮ম অধ্যায় শূন্যস্থান পূরণ

১. কাজের একক হচ্ছে ____।
২. পদার্থবিজ্ঞানের ভাষায় কাজ কথাটার ____ অর্থ আছে।
৩. শক্তি হচ্ছে কাজ করার ____।
৪. বিজ্ঞানের ভাষায় ক্ষমতা হচ্ছে কাজ করার ____।
৫. কাজ করার অর্থ হচ্ছে ____ রূপান্তর।

৬. যান্ত্রিক শক্তির দুটি রূপ হতে পারে গতিশক্তি এবং ____।
৭. গতির জন্য বস্তুর ভেতরে একধরনের শক্তি হয় সেটাকে বলে ____।
৮. একটা পাথর উপরে তুললে এর মধ্যে ____ শক্তির জন্ম হয়।
৯. শক্তির রূপান্তর খুবই ____ একটা প্রক্রিয়া।
১০. যাবতীয় যন্ত্রের যাবতীয় ইঞ্জিনে তাপশক্তিকে ____ শক্তিতে রূপান্তর করা হয়।

১১. ____ দুটি ভিন্ন ধাতব পদার্থের সংযোগস্থলে তাপ প্রদান করে সরাসরি তাপ থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন করা যায়।
১২. বাল্বের ফিলামেন্টে তাপকে ____ শক্তিতে রূপান্তর করা হয়।
১৩. ঘর্ষণের কারণে সবসময়ই ____ তৈরি হচ্ছে।
১৪. ক্ষমতার একক হলো ____।
১৫. একটি বস্তুকে বল প্রয়োগে সরাতে না পারলে মোট কাজের পরিমাণ ____।

উত্তর: ১. জুল; ২. সুনির্দিষ্ট; ৩. ক্ষমতা; ৪. হার; ৫. শক্তির, ৬. স্থিতিশক্তি; ৭. গতিশক্তি, ৮. বিভব; ৯. স্বাভাবিক; ১০. যান্ত্রিক; ১১. থার্মোকাপল; ১২. আলোক; ১৩. তাপশক্তি; ১৪. ওয়াট; ১৫. শূন্য।


বিজ্ঞান অনুসন্ধানী পাঠ ৭ম শ্রেণি ৮ম অধ্যায় সত্য/মিথ্যা নির্ণয়

১. পদার্থ বিজ্ঞানের ভাষায় কাজ কথাটার সুনির্দিষ্ট অর্থ নেই।
২. কাজের একক জুল।
৩. শক্তি হচ্ছে কাজ করার ক্ষমতা।
৪. শক্তির একক এবং কাজের একক এক নয়।
৫. বল প্রয়োগের ফলে কোনো বস্তুর সরণ ঘটলে সেখানে কাজ হয়।

৬. আলো এক প্রকার শক্তি।
৭. কাজ করার অর্থ শক্তির রূপান্তর।
৮. কাজ করার হারকে ক্ষমতা বলে।
৯. শক্তিকে একরূপ থেকে অন্যরূপে রূপান্তর করা যায় না।
১০. ক্ষমতার একক ওয়ার্ট।

১১. বৈদ্যুতিক পাখায় বিদ্যুৎশক্তি যান্ত্রিক শক্তিতে রূপান্তর হয়।
১২. স্পিকারে বিদ্যুৎশক্তি যান্ত্রিক শক্তিতে রূপান্তরিত হয়।
১৩. পরিমাণের দিক থেকে বিবেচনা করলে পৃথিবীতে সবচেয়ে বেশি শক্তির রূপান্তর হয় বিদ্যুৎশক্তি থেকে।
১৪. সোলার প্যানেলে সরাসরি আলো থেকে বিদ্যুৎ তৈরি হয়।
১৫. নিউক্লিয়াসের ভাঙনে আমরা রাসায়নিক শক্তি পাই।

উত্তর: ১. মিথ্যা, ২. সত্য, ৩. সত্য, ৪. মিথ্যা, ৫. সত্য, ৬. সত্য, ৭. সত্য, ৮. সত্য, ৯. মিথ্যা, ১০. সত্য, ১১. সত্য, ১২. মিথ্যা, ১৩. মিথ্যা, ১৪. সত্য, ১৫. মিথ্যা।


বিজ্ঞান অনুসন্ধানী পাঠ ৭ম শ্রেণি ৮ম অধ্যায় সংক্ষিপ্ত প্রশ্ন ও উত্তর

প্রশ্ন-১। কাজ কী?
উত্তর: কোনো বস্তুর উপর বলপ্রয়োগ করে বলের দিকে যদি বস্তুটিকে একটা দূরত্বে সরানো যায় তাহলে তাকে কাজ বলে।

প্রশ্ন-২। কাজের একক কী?
উত্তর: কাজের একক ভুল।

প্রশ্ন-৩। শক্তি কী?
উত্তর: কাজ করার ক্ষমতাকে শক্তি বলে।

প্রশ্ন-৪। শক্তির একক কী?
উত্তর: শক্তির একক জুল।

প্রশ্ন-৫। ক্ষমতা কাকে বলে?
উত্তর: কাজ করার হারকে ক্ষমতা বলে।

প্রশ্ন-৬। 1 ওয়াট কী?
উত্তর: প্রতি সেকেন্ডে 1 জুল কাজ করা হলে তাকে 1 ওয়াট বলে।

প্রশ্ন-৭।100 MW সমান কত জুল?
উত্তর: 100 MW সমান 100 x 10^6 জুল।

প্রশ্ন-৮। শক্তির সাধারণ রূপ কোনটি?
উত্তর: শক্তির সবচেয়ে সাধারণ রূপ হচ্ছে যান্ত্রিক শক্তি।

প্রশ্ন-৯। যান্ত্রিক শক্তির কয়টি রূপ? কী কী?
উত্তর: যান্ত্রিক শক্তির দুটি রূপ। যথা— গতিশক্তি এবং স্থিতিশক্তি।

প্রশ্ন-১০। গতিশক্তি কাকে বলে?
উত্তর: গতির জন্য বস্তুর ভিতরে একধরনের শক্তি সৃষ্টি হয়, তাকে গতিশক্তি বলে।

প্রশ্ন-১১। গতিশক্তির রাশিমালা লেখ।
উত্তর: গতিশক্তির রাশিমালা হচ্ছে 1/2mv^2.

প্রশ্ন-১২। শক্তির নিত্যতা সুত্রটি লেখ।
উত্তর: শক্তির সৃষ্টি বা ধ্বংস নেই। শক্তিকে এক রূপ থেকে অন্যরূপে রূপান্তর করা সম্ভব। এটি শক্তির নিত্যতা সূত্র।

প্রশ্ন-১৩। বৈদ্যুতিক পাখায় বিদ্যুৎ শক্তি কোন রূপান্তরিত হয়।
উত্তর: বৈদ্যুতিক পাখায় বিদ্যুৎ শক্তি রূপান্তরিত হয়।

প্রশ্ন-১৪। আধুনিক প্রযুক্তির যুগে রাস সবচেয়ে বড় উদাহরণ কোনটি?
উত্তর: আধুনিক প্রযুক্তির যুগে রাসায়নিক শক্তির রূপান্তরের সবচেয়ে বড় উদাহরণ হচ্ছে ব্যাটারি।

প্রশ্ন-১৫। ব্যাটারিতে রাসায়নিক শক্তি কোন শক্তিতে রূপান্তরিত হয়?
উত্তর: ব্যাটারিতে রাসায়নিক শক্তি বৈদ্যুতিক শক্তিতে রূপান্তরিত হয়।


বিজ্ঞান অনুসন্ধানী পাঠ ৭ম শ্রেণি ৮ম অধ্যায় যোগ্যতাভিত্তিক প্রশ্ন ও উত্তর

প্রশ্ন-১। একজন দারোয়ান বাড়ির গেটের সামনে সারাদিন বসে পাহারা দিলে কোনো কাজ সম্পন্ন হয় না কেন? যুক্তি দাও। 
উত্তর: পদার্থবিজ্ঞানের ভাষায় কাজ সম্পন্ন হওয়ার সুনির্দিষ্ট অর্থ আছে। কোনো বস্তুর উপর যদি বলপ্রয়োগ করে যেদিকে বল প্রয়োগ করা হয়, সেদিকে বস্তুটির সরণ ঘটানো যায় তাহলে কাজ সম্পন্ন হয়। একজন দারোয়ান বাড়ির গেটের সামনে সারাদিন বসে পাহারা দেওয়ার সময় তার অবস্থানের কোনো পরিবর্তন হয় না। হয় না। অর্থাৎ নির্দিষ্ট স্থানে বসে পাহারা দেওয়ার সরণ শূন্য হয়। তাই দারোয়ান পাহারা দিলে কোনো কাজ সম্পন্ন হয় না।

প্রশ্ন-২। সূর্যের আকর্ষণে পৃথিবীর ঘূর্ণনের ফলে সূর্যের বা পৃথিবীর কোনো শক্তির পরিবর্তন হয় না কেন? কারণ দর্শাও।
উত্তর: যখন কোনো বস্তুর ওপর বলপ্রয়োগ করে কাজ করা হয় তখন সেই বলটি বস্তুটির মধ্যে নির্দিষ্ট পরিমাণে শক্তি প্রদান করে। ফলে বস্তুটির মধ্যে সম্পন্ন কাজের পরিমাণে শক্তি সৃষ্টি হয়। আবার বস্তুটিতে যে পরিমাণ বলপ্রয়োগ করা হয়েছে ঠিক সমপরিমাণ শক্তি ব্যয় হয়ে যায়। সূর্যের মহাকর্ষ বলের আকর্ষণে পৃথিবী যখন নক্ষত্রটিকে কেন্দ্র করে বৃত্তাকার পথে ঘুরতে থাকে তখন পৃথিবী বলের সমকোণে সরে যায়। ফলে কোনো কাজ সম্পন্ন হয় না। অর্থাৎ সূর্যের কোনো শক্তি ব্যয় হয় না বা পৃথিবীর কোনো শক্তি বৃদ্ধি পায় না। তাই সূর্যের আকর্ষণে পৃথিবীর ঘূর্ণনের ফলে সূর্যের থবীর কোনো শক্তির পরিবর্তন হয় না।

প্রশ্ন-৩। পাবনার পপুরের পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের উৎপাদন ক্ষমতা 2400MW বলতে তুমি কী বুঝ?
উত্তর: পাবনার রূপপুরের পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের উৎপাদন ক্ষমতা 2400MW বলতে আমি বুঝি, এই বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে প্রতি সেকেন্ডে 2400 × 10^6 জুল বিদ্যুৎ শক্তি উৎপন্ন হবে।

প্রশ্ন-৪। সুতায় বেঁধে দেওয়া ঝুলন্ত পাথর দোলায়মান হলে যান্ত্রিক শক্তির রূপান্তর কীভাবে ঘটে?
উত্তর: যান্ত্রিক শক্তির দুটি রূপ হলো স্থিতিশক্তি ও গতিশক্তি। সুতায় বেঁধে দেওয়া ঝুলন্ত পাথর এক পাশে টেনে ছেড়ে দিলে এটি স্থির অবস্থা থেকে একটু উপরে উঠে যায়। এতে পাথরের মধ্যে স্থিতিশক্তি জমা হবে। এখন পাথরটি ছেড়ে দিলে তার মধ্যে গতির সঞ্চার হয়। যখন পাথরটি ঠিক মাঝখানে পৌঁছায় তখন স্থিতিশক্তি গতিশক্তিতে রূপান্তরিত হয়। এটির গতি সচল থাকার ফলে বেগ নিঃশেষ না হওয়া পর্যন্ত উপরের দিকে উঠতে থাকে। অর্থাৎ পাথরটিতে আবার স্থিতি শক্তির সৃষ্টি হয়। এভাবে সুতায় বেঁধে দেওয়া, ঝুলন্ত পাথর দোলায়মান হলে যান্ত্রিক শক্তির রূপান্তর ঘটে।

প্রশ্ন-৫। এক রূপের নির্দিষ্ট পরিমাণ শক্তি অন্যরূপে রূপান্তরিত করলে তুমি কীভাবে শক্তির হিসাব করতে পারবে?
উত্তর: শক্তি যখন একরূপ থেকে অন্যরূপে রূপান্তরিত হয় তখন শক্তির কোনো ক্ষয় হয় না। কোনো বস্তু যে পরিমাণ শক্তি হারায় অপর বস্তু ঠিক সেই পরিমাণ শক্তি লাভ করে। শক্তির তারতম্যে কোনো পরিবর্তন হয় না। সৃষ্টির প্রথম মুহূর্তে যে পরিমাণ শক্তি ছিল বর্তমানে মহাবিশ্বে সেই পরিমাণ শক্তি রয়েছে। অর্থাৎ শক্তির সৃষ্টি বা ধ্বংস নাই, শুধু রূপ পরিবর্তন করে। এটি শক্তির নিত্যতা। এ নীতি থেকে আমি রূপান্তরিত শক্তির হিসাব করতে পারব।


🔰🔰 আরও দেখুন: বিজ্ঞান অনুসন্ধানী পাঠ ৭ম শ্রেণি ৩য় অধ্যায় প্রশ্ন ও উত্তর
🔰🔰 আরও দেখুন: বিজ্ঞান অনুসন্ধানী পাঠ ৭ম শ্রেণি ৪র্থ অধ্যায় প্রশ্ন ও উত্তর
🔰🔰 আরও দেখুন: বিজ্ঞান অনুসন্ধানী পাঠ ৭ম শ্রেণি ৫ম অধ্যায় প্রশ্ন ও উত্তর
🔰🔰 আরও দেখুন: বিজ্ঞান অনুসন্ধানী পাঠ ৭ম শ্রেণি ৬ষ্ঠ অধ্যায় প্রশ্ন ও উত্তর


আশাকরি “বিজ্ঞান অনুসন্ধানী পাঠ ৭ম শ্রেণি ৮ম অধ্যায় প্রশ্ন ও উত্তর” আর্টিকেল টি আপনাদের ভালো লেগেছে। আমাদের কোন আপডেট মিস না করতে ফলো করতে পারেন আমাদের ফেসবুক পেজ ও সাবক্রাইব করতে পারেন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল।